কানাইঘাটে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ, মুক্তিযোদ্ধা ফখরুল ইসলামের ছেলেদের ক্ষমতার দাপট।

সিলেট জেলা প্রতিনিধি মীর আয়াত আলী
  • Update Time : Saturday, March 6, 2021
  • 15 Time View

কানাইঘাটে উপজেলার বড়মাগুরী বিলের একাংশের লীজ প্রক্রীয়া নিয়ে গত মঙ্গলবার সকাল ১১টার দিকে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে অন্তত ১০জন আহতের খবর পাওয়া গেছে। আহতদের মধ্যে ৬জনের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। জানা যায় কানাইঘাট সদর ইউনিয়নের ১২জন বীরমুক্তিযোদ্ধাদের নামে বড়মাগুরী বিলের একাংশে সরকারি জায়গা লীজ দেওয়া হয়। গত ২ বছর ধরে লীজকৃত বিলের জায়গা নীলামের টাকা নিয়ে সদর ইউনিয়নের বীর মুক্তিযোদ্ধা ফখরুল ইসলাম ও অপর পক্ষের মুক্তিযোদ্ধা খলিলুর রহমান গংদের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। সকাল ১১ টার দিকে বীর মুক্তিযোদ্ধা ফখরুল ইসলামের ৩ ছেলে ও তাদের স্বজনরা বড় মাগুরী বিলে উপস্থিত হয়ে বিলের লীজের তাদের পাওনা টাকা লীজকারীদের কাছে খোঁজতে গেলে এ নিয়ে বিলের পাড়ে দুই পক্ষের মধ্যে প্রথমে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। একপর্যায়ে সংঘর্ষ বেধে যায় দুই পক্ষের মধ্যে। এতে বীর মুক্তিযোদ্ধা ফখরুলে ইসলামের ছেলেরা সন্ত্রাসী কায়দায় দেশীয় ধারালো অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে হামলা করে তখন উভয় পক্ষই সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন এতে আহত হন বড়দেশ নয়াগ্রামের সামছুলকের পুত্র জাকারিয়া (৩৫) ও তার ভাই শরীফ আহমদ (৩২) এবং মধ্যস্হা পক্ষে একই গ্রামের আওলাদ হোসেনের পুত্র জাকারিয়া আহমদ (৩০) কে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে বাম পায়ের অবস্থা খুবই গুরুত্বর।

অপর পক্ষে কিছু আঘাত প্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা ফখরুল ইসলামের ছেলে জাকারিয়া খালিদ (৩৮), অহিদুল ইসলাম (৩০), জাহিদুল ইসলাম (২৭), ফখরুল ইসলামের নাতি সামিয়ান তানিম (২১) তাদের স্বজন আব্দুল হামিদ (২৩), জালাল উদ্দিন (২৮), ইসলাম উদ্দিন (৩৪)

কিন্তু বড়দেশ গ্রামের আহতদের মধ্যে শরীরের বিভিন্ন স্থানে ও মাথায় গুরুতর জখম হওয়ায় জাকারিয়া আহমদ, শরীফ, মধ্যস্হ পক্ষের জাকারিয়া কে ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যান্যদের কানাইঘাট উপজেলা হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

ঘটনার খবর পেয়ে কানাইঘাট থানার ওসি (তদন্ত) জাহিদুল ইসলাম সরজমিনে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িতদের এব্যাপারে থানার ওসি (তদন্ত) জাহিদুল হকের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, মুক্তিযোদ্ধা ফখরুল ইসলাম একটি অভিযোগ দায়ের করেন। কিন্তু ফখরুল ইসলামের দায়েরকৃত অভিযোগের প্রেক্ষিতে বড়মাগুরী বিলের পাড়ে মারামারির ঘটনার সাথে জড়িত ফারুক আহমদ নামে একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তদন্ত পূর্বক মারামারির সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
কিন্তু বড়দেশ গ্রামের মধ্যস্হ পক্ষের আওলাদ হোসেনের পুত্র জাকারিয়া আহমদ বিলে মাছ কিনতে গিয়ে গুরুতর জখম হওয়ার কারনে এখনো এম এ জি ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে চিকিৎসা চলতেছে। তাদের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত কোন মামলা করা হয়নি।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category